সর্বশেষ সংবাদ
ঈদের ছবি নিয়ে হিসাব-নিকাশ এখনো মিলছে না  » «   ১১ প্রশ্নে ৮২ ভুল!  » «   মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল : আরেকটা হাতছানি  » «   ২ সেপ্টেম্বর শাবিতে ভর্তির আবেদন শুরু  » «   এ্যাকশনে পুননির্বাচিত আরিফ  » «   ঈদের আগে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছে বিএনপি  » «   সমকাল সম্পাদককে শেষ শ্রদ্ধা  » «   অনবদ্য তামিম ইকবাল  » «   ওরা এখনো নজরকাড়া  » «   শাবিপ্রবি’র হল বন্ধ  » «   সিলেটে ২১ আগষ্ট থেকে ৫ দিন বন্ধ বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার রিচার্জ  » «   ইকুয়েডরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২৪ জন নিহত  » «   ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন হ্যাক করা অত্যন্ত সহজ!  » «   সারা’র রুপে মুগ্ধ সবাই  » «   আবারও সিলেটে অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধু কাপ  » «  

১৮ জানুয়ারি‘জয়-বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান ঘোষণার পরবর্তী শুনানি



foxপ্রান্তডেস্ক:‘জয়-বাংলা’কে কেন জাতীয় স্লোগান ও মূলমন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে হাইকোর্টের জারি করা রুল শুনানির জন্য নতুন তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত।
রোববার (১০ ডিসেম্বর) ওই রুলের শুনানির দিন ধার্য ছিল। পরে বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ১৮ জানুয়ারি শুনানির নতুন তারিখ ঠিক করেন।
এর আগে জারি করা রুলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইন সচিব ও শিক্ষা সচিবকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে জবাব দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত।
আদালতে আবেদনকারী সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক ড. বশির আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, পৃথিবীর সাত দেশে জাতীয় স্লোগান আছে। ‘জয়-বাংলা’ হচ্ছে আমাদের জাতীয় প্রেরণার প্রতীক। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের দুর্ভাগ্য যে, আমরা আমাদের চেতনার সেই জয়-বাংলাকে স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর্যন্ত জাতীয় স্লোগান হিসেবে পাইনি।
তিনি বলেন, জয়-বাংলা কোনো দলের স্লোগান নয়, কোনো ব্যক্তির স্লোগান নয়, এটি হচ্ছে- আমাদের ‘ন্যাশনাল ইউনিটি’। এই স্লোগান দিয়ে একদিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন। গোটা জাতি মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। স্বাধীনতাপরবর্তী সময়ে জয়-বাংলা স্লোগান দিয়ে ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালিত হয়েছিল। আমরা কোর্টকে বলেছি- এটিকে যাতে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

Developed by: