সর্বশেষ সংবাদ
ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রদলের কমিটি : ঘোষণা উপজেলার, বাতিল জেলার  » «   ক্রীড়া সংগঠক আব্দুল কাদিরের মায়ের ইন্তেকাল  » «   রণবীর-দীপিকা বিয়ে নভেম্বরে?  » «   যাদুকর ম্যারাডোনার পায়ের অবস্থা করুণ  » «   একটু আগেবাগেই শীতের আগমণ  » «   চট্টগ্রামে আইয়ুব বাচ্চুর জানাযা বাদ আছর  » «   রাবণ পোড়ানো দর্শনকারী ভিড়ের উপর দিয়ে ছুটে গেলো ট্রেন : নিহত ৬০  » «   গোলাপঞ্জে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন উদ্বোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী  » «   বিসর্জনের দিন সিলেটে আসনে ‘দেবী’  » «   বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে মেয়র আরিফ  » «   সিলেটে স্বয়ংক্রিয় কৃষি-আবহাওয়া স্টেশন স্থাপিত  » «   শীতে ত্বক সজীব রাখতে শাক-সবজি খান  » «   সিলেট ওসমানী বিমানবন্দর সংস্কার হচ্ছে প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে  » «   কোম্পানীগঞ্জে টাস্কফোর্সের অভিযানে পেলোডার মেশিন জব্দ  » «   ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনে সরকারকে নোটিশ  » «  

প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার দাবিতে বাপা’র মানববন্ধন



jpyস্টাফরিপোর্টার: সিলেটের পরিবেশ রক্ষায় বৈরী আবহাওয়ায় মানবন্ধন করেছে পরিবেশবাদী সংগঠন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)। কোম্পানীগঞ্জে পরিবেশ ধ্বংসের মামলার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার ও জাফলং, বিছনাকান্দি, শ্রীপুর, লোভাছড়ার পাথরখেকোদের চিহ্নিত করে শাস্তির দাবিতে এ মানববন্ধন করে সংগঠনটি। এতে সিলেটের প্রাকৃতিক সম্পদ আজ ধ্বংসের শেষপ্রান্তে রয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (বাপা) এর সাধারণ সম্পাদক আবদুল করিম ক্বীম।
তিনি বলেন, জাফলং, বিছনাকান্দি, ভোলাগঞ্জ, লোভাছড়া, কানাইঘাট, যাদুকাটা নদীসহ এই অঞ্চলের প্রত্যেকটি নদী তীরবর্তী এলাকা পাহাড় ও টিলা ধ্বংস করে অবৈধ ভাড়াটে বোমা মেশিনের সাথে পাথর উত্তোলন চলছে। গত দেড় দশক থেকে এ অপরাধ চলছে।
বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে ৩টায় নগরীর চৌহাট্টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে পরিবেশবাদী সংগঠন বাপা’র মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে ক্বীম আরও বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বোমা মেশিনের মাধ্যমে পাথর উত্তোলন বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে। কিন্তু প্রাকৃতিক সম্পদ আজ ধ্বংসের শেষ প্রান্তে। জাফলংয়ের যে সৌন্দর্য ছিল সেই সৌন্দর্য আজকে নেই। এই জাফলং দেখে মানুষ বলে প্রকৃতিকে কিভাবে মানুষ ধ্বংস করেছে সেটা দেখার জন্য জাফলংয়ে দেখা যেতে পারে।
দু:খ প্রকাশ করে ক্বীম বলেন, সিলেট অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য ছিল, গর্ব ছিল সিলেটের প্রকৃতি। কিন্তু আজ প্রকৃতিকে এমনভাবে ধ্বংস করা হয়েছে। এই অবস্থাতে শুধু পরিবেশবাদী সংগঠনের পক্ষ থেকে পাথর লোটেরাদের বিপক্ষে একা আমরা আর লড়াই করে পারছিনা। আমরা বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সবার কাছে আহবান জানাচ্ছি। টিপাই মুখ বাঁধের বিপক্ষে এক সময় যেভাবে মানুষ আন্দোলন করেছিল এই অবস্থাতে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আন্দোলন জানাতে হবে।
চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ২৯ জনের প্রাণহানী ঘটেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত জানুয়ারি থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে পাথরকোয়ারীতে। এই মৃত্যুর দায়ভার নেয়ার মত কেউ নেই। এদের জন্য শোক করার মতও কেউ নেই। মৃত্যুর পর তাদেরকে ক্ষতিপূরন পর্যন্তও দেয়া হয়নি। এই মৃত্যুগুলোকে দুর্ঘটনা বলা যাবে না এগুলো হত্যাকান্ড।
মানবন্ধনে সিলেটের প্রকৃতিকে রক্ষায় পরিবেশবাদী আন্দোলনসহ সকল রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনকেও এগিয়ে আসার আহবান জানানো হয়। এদিকে পাথরখেকোদের হাত থেকে প্রকৃতিকে রক্ষায় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে সিলেট বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে আগামী বৃহস্পতিবার স্মারকলিপি প্রদান করে হবেও বলে জানিয়েছেন ক্বীম।

Developed by: