সর্বশেষ সংবাদ
সালমান শাহের মৃত্যু রহস্য উদঘাটনে সময় পেল পিবিআই  » «   এসডিসি কার্য্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  » «   মৌলভীবাজারের ৫ জনের যুদ্ধাপরাধের রায় যে কোনো দিন  » «   এরা এখনো বিশ্বাস করে না পৃথিবী গোল!  » «   সাগরে লঘুচাপ, হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস  » «   লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করা হয়েছে বিরল প্রজাতির লেজের ‘মোল’  » «   লন্ড‌নে এসিড হামলায় দু‌টি চোখ হারা‌লেন বাংলা‌দেশী তরুন  » «   জাফলংয়ে মাটি চাপায় কিশোরী নিহত, আহত ৪  » «   ক্লিনিক আর ডায়গনাস্টিক সেন্টারে সড়কজুড়ে যানজট  » «   কমরেড আ ফ ম মাহবুবুল হক আর নেই  » «   গোলাপগঞ্জে তেলবাহী লেগুনায় আগুন  » «   পিলখানা হত্যাকাণ্ড : হাইকোর্টের রায় ২৬ নভেম্বর  » «   লোদীর বাসায় মেয়র আরিফ: বিরোধের অবসান!  » «   নগরীতেে কোনদিন কোথায় স্মার্ট কার্ড বিতরণ  » «   সৌদির বিরুদ্ধে লেবাননের যুদ্ধ ঘোষণা!  » «  

প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার দাবিতে বাপা’র মানববন্ধন



jpyস্টাফরিপোর্টার: সিলেটের পরিবেশ রক্ষায় বৈরী আবহাওয়ায় মানবন্ধন করেছে পরিবেশবাদী সংগঠন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)। কোম্পানীগঞ্জে পরিবেশ ধ্বংসের মামলার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার ও জাফলং, বিছনাকান্দি, শ্রীপুর, লোভাছড়ার পাথরখেকোদের চিহ্নিত করে শাস্তির দাবিতে এ মানববন্ধন করে সংগঠনটি। এতে সিলেটের প্রাকৃতিক সম্পদ আজ ধ্বংসের শেষপ্রান্তে রয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (বাপা) এর সাধারণ সম্পাদক আবদুল করিম ক্বীম।
তিনি বলেন, জাফলং, বিছনাকান্দি, ভোলাগঞ্জ, লোভাছড়া, কানাইঘাট, যাদুকাটা নদীসহ এই অঞ্চলের প্রত্যেকটি নদী তীরবর্তী এলাকা পাহাড় ও টিলা ধ্বংস করে অবৈধ ভাড়াটে বোমা মেশিনের সাথে পাথর উত্তোলন চলছে। গত দেড় দশক থেকে এ অপরাধ চলছে।
বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে ৩টায় নগরীর চৌহাট্টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে পরিবেশবাদী সংগঠন বাপা’র মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে ক্বীম আরও বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বোমা মেশিনের মাধ্যমে পাথর উত্তোলন বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে। কিন্তু প্রাকৃতিক সম্পদ আজ ধ্বংসের শেষ প্রান্তে। জাফলংয়ের যে সৌন্দর্য ছিল সেই সৌন্দর্য আজকে নেই। এই জাফলং দেখে মানুষ বলে প্রকৃতিকে কিভাবে মানুষ ধ্বংস করেছে সেটা দেখার জন্য জাফলংয়ে দেখা যেতে পারে।
দু:খ প্রকাশ করে ক্বীম বলেন, সিলেট অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য ছিল, গর্ব ছিল সিলেটের প্রকৃতি। কিন্তু আজ প্রকৃতিকে এমনভাবে ধ্বংস করা হয়েছে। এই অবস্থাতে শুধু পরিবেশবাদী সংগঠনের পক্ষ থেকে পাথর লোটেরাদের বিপক্ষে একা আমরা আর লড়াই করে পারছিনা। আমরা বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সবার কাছে আহবান জানাচ্ছি। টিপাই মুখ বাঁধের বিপক্ষে এক সময় যেভাবে মানুষ আন্দোলন করেছিল এই অবস্থাতে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আন্দোলন জানাতে হবে।
চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ২৯ জনের প্রাণহানী ঘটেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত জানুয়ারি থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে পাথরকোয়ারীতে। এই মৃত্যুর দায়ভার নেয়ার মত কেউ নেই। এদের জন্য শোক করার মতও কেউ নেই। মৃত্যুর পর তাদেরকে ক্ষতিপূরন পর্যন্তও দেয়া হয়নি। এই মৃত্যুগুলোকে দুর্ঘটনা বলা যাবে না এগুলো হত্যাকান্ড।
মানবন্ধনে সিলেটের প্রকৃতিকে রক্ষায় পরিবেশবাদী আন্দোলনসহ সকল রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনকেও এগিয়ে আসার আহবান জানানো হয়। এদিকে পাথরখেকোদের হাত থেকে প্রকৃতিকে রক্ষায় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে সিলেট বিভাগীয় কমিশনারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে আগামী বৃহস্পতিবার স্মারকলিপি প্রদান করে হবেও বলে জানিয়েছেন ক্বীম।

Developed by: