সর্বশেষ সংবাদ
ঈদের ছবি নিয়ে হিসাব-নিকাশ এখনো মিলছে না  » «   ১১ প্রশ্নে ৮২ ভুল!  » «   মেয়েদের সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবল : আরেকটা হাতছানি  » «   ২ সেপ্টেম্বর শাবিতে ভর্তির আবেদন শুরু  » «   এ্যাকশনে পুননির্বাচিত আরিফ  » «   ঈদের আগে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেছে বিএনপি  » «   সমকাল সম্পাদককে শেষ শ্রদ্ধা  » «   অনবদ্য তামিম ইকবাল  » «   ওরা এখনো নজরকাড়া  » «   শাবিপ্রবি’র হল বন্ধ  » «   সিলেটে ২১ আগষ্ট থেকে ৫ দিন বন্ধ বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার রিচার্জ  » «   ইকুয়েডরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২৪ জন নিহত  » «   ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন হ্যাক করা অত্যন্ত সহজ!  » «   সারা’র রুপে মুগ্ধ সবাই  » «   আবারও সিলেটে অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধু কাপ  » «  

কলেজ ছাত্রী স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা



jpyমাধবপুর প্রতিনিধি॥ মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়নের রতনপুর গ্রামে কলেজ ছাত্রী স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন আত্মগোপন করেছে। গত ৮ নভেম্বর বুধবার সকাল ১০টায় মাধবপুর থানার এসআই আক্তারুজ্জামান লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন।
গৃহবধূর চাচা মৃত আব্দুল হামিদের পুত্র বাবুল মিয়া জানান, দুই বছর আগে একই উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের বাসিন্দা তার বড় ভাই ইলিয়াছ মিয়ার কন্যা সৈয়দ সঈদ উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্রী রিপা আক্তারকে (২০) বিয়ে দেয়া হয় রতনপুর গ্রামের ছাবু মিয়ার পুত্র স্কয়ার ঔষধ কোম্পানীর মাধবপুর শাখার এরিয়া ম্যানেজার জাহের উদ্দিনের নিকট। বিয়ের সময় রিপাকে যথাসাধ্য উপহার দেয়া হয়েছিল।
দাম্পত্য জীবনে রিপার গর্ভে এক পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। সম্প্রতি জাহের গাড়ি কেনার জন্য রিপার নিকট টাকা দাবি করে। বিষয়টি রিপা তার স্বজনদের জানায়। কিন্তু তার দরিদ্র পিতার পক্ষ থেকে টাকা দেয়া সম্ভব হয়নি। ফলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে জাহের এবং রিপাকে বিভিন্ন সময় টাকা এনে দিতে নির্যাতন করতে থাকে সে। নির্যাতনের বিষয়টি রিপা প্রায়ই তার পিতা মাতাকে জানায়। রিপার অভিভাবকরা জাহেরের পরিবারের নিকট বিচার প্রার্থী হয়ে প্রতিকার পায়নি।
গত মঙ্গলবার রাতে রিপা ফোনে তার মাকে জানায়, যৌতুকের জন্য জাহের ও তার পরিবারের লোকজন তাকে মারধোর করছে। এরপর থেকে রিপার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। রাত ১০টার দিকে জাহের রিপার পরিবারকে জানায়, রিপাকে মাধবপুর উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার অবস্থা ভাল নয়। এদিকে জাহের তড়িগড়ি করে রিপার মৃতদেহ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রিপার পিতা-মাতা হাসপাতালে গিয়ে রিপাকে মৃত অবস্থায় দেখতে পেয়ে আহাজারি শুরু করে বলেন, তাদের মেয়েকে মেরে ফেলা হয়েছে। অবস্থা বেগতিক দেখে জাহের লাশ নিয়ে তার বাড়ি চলে যায় এবং সেখানে লাশ রেখে পালিয়ে যায়। রিপার মা সরূপা বেগম জানান, তারা আমার কন্যাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। রিপা পড়ালেখায় ভাল ছিল। এসএসসিতে গোল্ডেন ফাইভ পেয়েছিল। তার ইচ্ছে ছিল ডাক্তার হবে।
৯ নভেম্বর সকালে এসআই আক্তার ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন। তিনি জানান, লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ছাড়া মৃত্যুর কারণ বলা সম্ভব নয়।
এদিকে হাসপাতাল মর্গের চিকিৎসক ডাঃ দেবাশীস দাস জানান, লাশের মুখে ও গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ছাড়া মৃত্যুর কারণ বলা যাবে না। সন্ধ্যায় ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের জিম্মায় হস্তান্তর করা হয়। এ বিষয়ে মাধবপুর থানার ওসি মোক্তাদির হোসেন জানান, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed by: