সর্বশেষ সংবাদ
সুরমা পয়েন্টে যুবলীগ নামধারী দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে যুবক আহত  » «   সিলেটে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধারের নির্দেশ দিলেন পুলিশের আইজিপি  » «   চুনারুঘাটে দুপক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১  » «   মিয়ানমারে আবারও সেনা অভ্যুত্থানের শঙ্কা  » «   সিলেট বিভাগে সেরা র‍্যাংকিংয়ে এমসি কলেজ  » «   ফেনীতে মুসলমান শিক্ষককে খুন করলেন বৌদ্ধ সহকর্মী শিক্ষক !  » «   বায়োলজিক্যাল ঘড়ি কী, যে কারণে নোবেল পুরস্কার  » «   নগরীতে বিপুল পরিমাণ মাদক দ্রব্যসহ ২ শীর্ষ ব্যবসায়ী আটক  » «   চিকিৎসায় নোবেল পেলেন মার্কিন তিন বিজ্ঞানী  » «   সিলেটে বিদ্যুতের ডিজিটালাইজেশনের ফাঁদে দুই লাখ গ্রাহক!  » «   ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজারে বাড়ছে ঝুঁকি  » «   মৃত্যুর আগে পানি চেয়েও পায়নি কিশোর  » «   সিলেটে ৫৭৬ মণ্ডপে দুর্গাপূজা, থাকছে তিনস্তরের নিরাপত্তা  » «   জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১১ জনের নাম প্রকাশ  » «   মানবতা বিরোধী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত সু চি-সেনাপ্রধান  » «  

বেড়েছে পেঁয়াজ ও সবজির দাম : নেই মনিটরিং



foxবিশেষপ্রতিনিধি: চালের পর সিলেটে এবার বেড়েছে পেয়াজ ও সবজির দাম। বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা না থাকায় ব্যবসায়ীরা ইচ্ছে মতো মূল্য আদায় করছেন। ব্যবসায়ীরা জানান- আমদানি কম হওয়ায় বেড়ে গেছে পেঁয়াজের দামও। চাল এবং সবজির উচ্চমূল্যে নাভিশ্বাস উঠেছে নিম্নবিত্তদের।
ভারত থেকে আমাদানি কমে যাওয়ায় পেঁয়াজের দাম বেড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। ভারতে চলতি মাসের শেষ থেকে শুরু হবে নতুন মৌসুমের পেঁয়াজ সরবরাহ। এর আগে মৌসুমের শেষে এসে দেশটির বাজারে পণ্যটির সরবরাহ কমেছে। ফলে ভারত থেকে দেশে পেঁয়াজ আমদানিও কমেছে।
এর জের ধরে চলতি মাসের শুরু থেকে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে পণ্যটির দামে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা বজায় রয়েছে। চারদিনের ব্যবধানে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি আরো ৮ টাকা বেড়েছে। দুই সপ্তাহের বেশি সময়ের ব্যবধানে পণ্যটির দাম বেড়েছে কেজিতে ১৫-১৬ টাকা।
হিলি স্থলবন্দর কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, সাধারণত এ স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিদিন ৪০-৫০ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হলেও বর্তমানে এর সংখ্যা ২০-২৫ ট্রাকে নেমে এসেছে ।

এদিকে বাজারে প্রায় সব ধরনের তরিতরকারির দাম বেড়েছে। মাঝে কয়েক দিন সবজির দাম খানিকটা কম থাকলেও এখন কিনতে রীতিমতো ঘাম ঝরছে ক্রেতাদের। এতে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বেড়ে গেছে। ৬০ টাকার নিচে কোনো সবজি বাজারে নেই। ঈদের পর থেকে ক্রমাগত চালের দাম বাড়ায় যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছিল তার রেশ এখনো কাটেনি।
বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নিয়মিত তদারকির অভাবে বাজারে অনেক পণ্যের অস্বাভাবিক দাম রয়েছে। অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রভাবে শুধু নিম্নবিত্ত নয়, মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষেরও নাভিশ্বাস উঠেছে।
সবজির দাম বৃদ্ধির জন্য ব্যবসায়ীরা বরাবরের মতো সরবরাহের ঘাটতিকে অজুহাত হিসেবে দেখাচ্ছেন। তারা বলছেন, ভারি বর্ষণ ও বন্যার কারণে অনেক সবজির ক্ষেত মরে গেছে। নতুন করে আবাদ করা সবজি এখনো পুরোপুরি আসেনি, ফলে দাম বাড়ছে। বাজারে ৫০-৬০ টাকার নিচে মিলছে না তেমন কোনো সবজি। সপ্তাহ ব্যবধানে পেঁপে ও পটোল ছাড়া অন্য সবজির দাম বেশ চড়া।
চালের বাজার অস্বাভাবিক বেড়েছিল মজুদদারির কারণে। সরকারের কড়া মনোভাবে চালের দাম কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সবজির দাম বাড়ার একটি কারণ চাহিদার তুলনায় পর্যাপ্ত সবজি বাজারে না আসা। গত বন্যায় সবজির আবাদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ভয়াবহভাবে। তারপরও কিছু ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের অতিলোভ, অসাধুতা, কৃষি উৎপাদনে ব্যয়বৃদ্ধি, পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বাজারে পণ্যমূল্য বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে।
কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) ’র স্থানীয় দায়িত্বশীল এক নেতা বলেন, বাজারে নৈরাজ্যের কারণে চাহিদার তুলনায় উৎপাদন থাকা সত্তে¡ও দিন দিন দ্রব্যমূল্য নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে।
১০ বছরে দ্বিগুণ চালের দাম : ক্যাবের বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত এক দশকে মোটা চালের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ। ১০ বছর আগে বাজারের সবচেয়ে কম দামি চাল ছিল বিআর ১১ ও বিআর ৮। ২০০৬ সালে প্রতিকেজি এ চাল বিক্রি হতো ১৮ থেকে ২০ টাকায়। বর্তমানে এর দাম ৪৮ টাকা। অর্থাৎ গত দশ বছরে চালের দাম কেজিতে বেড়েছে ২৫ থেকে ২৮ টাকা। মোটা চালের পাশাপাশি সরু ও মাঝারি দানার চালের দামও বেড়েছে।
অতিবৃষ্টি, বন্যা, সংকট, সরবরাহে ঘাটতি, মজুদ কমে যাওয়া ও মিলারদের কারসাজিতে সারা দেশে চালের দাম বেড়েছে।
চাল ব্যবসায়ী আখতার হোসেন এ বিষয়ে বলেন, পাইকারি বাজারে চালের দাম কিছুটা কমেছে। তবে তা কেন খুচরা বাজারে প্রভাব পড়েনি, আমাদের জানা নেই। তবে সম্প্রতি যেভাবে বৃষ্টি হচ্ছে, তাতে চালের দাম আবার বাড়তে পারে বলে তিনি আভাস দেন।
সবজির দাম বেড়েছে কেজিতে ২৫/৩০ টাকা বাজার, ঘুরে দেখা গেছে, সস্তার সবজি হিসেবে পরিচিত আলু বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা কেজি দরে। আগের সপ্তাহে এর দাম ছিল ২০ টাকা। প্রতিকেজি পেঁপের দাম রাখা হচ্ছে ১৮/২০ টাকা। বেগুন বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৭০ টাকায়। ৫০ টাকা কেজি দরের করল্লা বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকায়। এদিকে গত সপ্তাহের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে কাঁচামরিচ।
বন্দর বাজারের সবজি বিক্রেতা কামাল বলেন, চাহিদার তুলনায় সরবরাহ অনেক কম থাকায় পাইকারি বাজারে সবজি বেশি দামে কিনতে হয়। এ কারণেই খুচরা বাজারে দাম বেড়েছে।
মেজরটিলা বাজারের সবজি ব্যবসায়ী বদর মিয়া বলেন, জোগান ও সরবরাহের ওপর সবজির দাম নির্ভর করে। সরবরাহ কমে যাওয়ার পাশাপাশি যাতায়াত খরচও বেড়েছে। এ ছাড়া পেঁয়াজ, রসুনসহ বিভিন্ন কাঁচামাল পানিতে নষ্ট হয়ে যায়।

Developed by: