সর্বশেষ সংবাদ
সালমান শাহের মৃত্যু রহস্য উদঘাটনে সময় পেল পিবিআই  » «   এসডিসি কার্য্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  » «   মৌলভীবাজারের ৫ জনের যুদ্ধাপরাধের রায় যে কোনো দিন  » «   এরা এখনো বিশ্বাস করে না পৃথিবী গোল!  » «   সাগরে লঘুচাপ, হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস  » «   লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত করা হয়েছে বিরল প্রজাতির লেজের ‘মোল’  » «   লন্ড‌নে এসিড হামলায় দু‌টি চোখ হারা‌লেন বাংলা‌দেশী তরুন  » «   জাফলংয়ে মাটি চাপায় কিশোরী নিহত, আহত ৪  » «   ক্লিনিক আর ডায়গনাস্টিক সেন্টারে সড়কজুড়ে যানজট  » «   কমরেড আ ফ ম মাহবুবুল হক আর নেই  » «   গোলাপগঞ্জে তেলবাহী লেগুনায় আগুন  » «   পিলখানা হত্যাকাণ্ড : হাইকোর্টের রায় ২৬ নভেম্বর  » «   লোদীর বাসায় মেয়র আরিফ: বিরোধের অবসান!  » «   নগরীতেে কোনদিন কোথায় স্মার্ট কার্ড বিতরণ  » «   সৌদির বিরুদ্ধে লেবাননের যুদ্ধ ঘোষণা!  » «  

শাহজালালে গায়ের রং ফর্সাকারী ইনজেকশন আটক



longপ্রান্তডেস্ক:হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আমদানি নিয়ন্ত্রিত গায়ের রং ফর্সাকারী ক্ষতিকারক ইনজেকশন জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর। মালয়েশিয়া থেকে আসা তিনটি পণ্যের চালান থেকে ২১৪ পিস ইনজেকশনের ভায়াল (বোতল) উদ্ধার করা হয়। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান এ তথ্য জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, শুল্ক গোয়েন্দাদের কাছে গোপন সংবাদ ছিল, মালয়েশিয়া থেকে আসা আমদানি নিয়ন্ত্রিত ওষুধের চালানগুলো ওষুধ প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া খালাস করে নেয়া হবে। সে তথ্যের ভিত্তিতে শুল্ক গোয়েন্দারা হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জিপিও সর্টিং সেন্টারে অবস্থান নেন।
ড. মইনুল খান বলেন, পরবর্তীতে জিপিও সর্টিং সেন্টারে মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে কসমেটিকসের নামে আনা আমদানি নিয়ন্ত্রিত ওষুধের তিনটি পণ্য চালান জব্দ করা হয়। সন্দেহজনক পণ্য চালানটি শনাক্তের পর স্ক্যানিংয়ের মাধ্যমে নিশ্চিত হয়ে আটক করা হয়। পণ্য চালানগুলো মালয়েশিয়া হতে এমএইচ ০১১২ এর মাধ্যমে কুয়ালালামপুর থেকে শাহজালালে আসে। পণ্য চালানটিতে কসমেটিকস ঘোষণা থাকলেও ইনভেন্ট্রি করে ২১৪ পিস ইনজেকশনের ভায়াল পাওয়া যায়। এ ধরনের ওষুধ আমদানি জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ। এসব ইনজেকশন গায়ের রং ফর্সা করার জন্য মানবদেহে ইনজেক্ট করা হয় বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছেন গোয়েন্দারা। চালানটি মালয়েশিয়ার টাম পেং সেং নামের একজন পাঠিয়েছেন। প্রাপকের ঠিকানায় লিখা রয়েছে, মধ্য পীরবাগের খন্দকার ফারুক আহমেদ।

Developed by: