সর্বশেষ সংবাদ
সুরমা নদীর তীর দখলে খোদ সিটি করপোরেশন  » «   কেন বাদ দেয়া হলো মুমিনুলকে?  » «   নাটকে একসঙ্গে তিন বন্ধু  » «   ৬ দিন হচ্ছে ঈদের ছুটি  » «   গোয়াইনঘাটের সাড়ে তিন লক্ষ মানুষ পানি বন্দি  » «   ‘নিহত জঙ্গি ছাত্র শিবির করতো, ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে হামলার পরিকল্পনা ছিল’  » «   প্রতিবছর লাখ লাখ শিশু হারিয়ে যায় কেন?  » «   পরিবহন জটিলতায় কৈলাশটিলা গ্যাস ফিল্ডে অচলাবস্থা  » «   গোলাপগঞ্জে যুবক অপহরণ, প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ  » «   নৌকা যাদের ভরসা  » «   শাহ্জালাল মাজারে বখাটে কর্তৃক মহিলাদের হয়রানীর অভিযোগ  » «   রুবির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে পিবিআই  » «   সিলেটে ২ ছাত্রলীগ কর্মীর উপর হামলার ঘটনায় ছাত্রশিবিরের বিবৃতি  » «   সিলেটে সবজির দাম বেড়েছে  » «   টিলা খেকোদের নিয়ন্ত্রনে সিলেট পরিবেশ অধিদপ্তর  » «  

ভয়াবহ পানি সংকটে পড়তে যাচ্ছে সিলেট নগরী



6প্রান্ত ডেস্ক: ২০৩০ সালের মধ্যে সিলেট নগরীর জনসংখ্যা ৬ লাখ থেকে বেড়ে ১০ লাখ হয়ে যাবে। বর্তমানে ৬ লাখ মানুষের পানির চাহিদা মেটাতে প্রয়োজন ১১৫ মিলি পানির। কিন্তু সেই জায়গায় পানি সরবরাহ ও বিতরণ করা হচ্ছে ৯৫ মি.লি.। বর্তমানে পানির ঘাটতি রয়েছে ২০ মি.লি। ২০৩০ সালে পানির প্রয়োজন হবে ২২৬ মি.লি. । এই হিসাবে ২০৩০ সালে সিলেট নগরীতে পানির ঘাটতি ভয়াবহ রূপ নেবে। প্রায় ১৫৬ মি.লি পানির ঘাটতি কারণে জনদুর্ভোগ চরমে পৌছবে।

শনিবার সিলেট সিটি কর্পোরশেন আয়োজনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সেমিনারে ‘‘ইন্সটিটিউট অব ওয়াটার মডিউলিং’’ এর এসএম মাহবুবুবর রহমান ‘‘ওয়াটার ডিস্ট্রিবিউশন ” এর প্রেজেন্টশন কালে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

এসময় তিনি আরো বলেন, পানির চাহিদা মেটাতে আরো দুটি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট স্থাপন করা হবে। সিলেটের সারি ও গাহেন নদী থেকে পানি সরবরাহ করে ঐ প্লান্টগুলোর মাধ্যমে তা শহরে বন্টন করা হবে।

Developed by: