সর্বশেষ সংবাদ
নিজের ছবির নায়িকা রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে মহেশ ভাটরিয়া চক্রবর্তী ঘনিষ্ঠ!  » «   এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ : ভিয়েতনামকে হারিয়ে গ্রুপসেরা বাংলাদেশের মেয়েরা  » «   বিসিবির প্রধান নির্বাচক নান্নুর বাসায় চুরি  » «   ঢাকায় সামার ওপেন ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতার সুপার সিক্সটিন পর্ব : সিলেটী-সিলেটী লড়াই  » «   আটক চার ছাত্রদল নেতার বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর  » «   জগন্নাথপুরের রুহুল আমিন ইতালিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত  » «   জিয়াদের পরিবারকে খুঁজছে সিলেট কোতোয়ালি পুলিশ  » «   বন্য হাতির আক্রমণে কুলাউড়ার যুবদল নেতার মৃত্যু  » «   এ কী বললেন পপি!!!  » «   ওয়াকারের সর্বকালের সেরা একাদশে যারা  » «   যে পাঁচ উপায়ে ঠিকঠাক থাকবে আপনার কম্পিউটার  » «   শ্রীমঙ্গলে সড়কে গাছ ফেলে গণডাকাতি, হামলায় আহত ৩০ : ২০টি গাড়িতে লুটপাট  » «   দেড় লাখ ইভিএম মেশিন কেনার প্রকল্প অনুমোদন  » «   ‘মাসুদ রানা’র ‘সোহানা’ শারলিন  » «   মৌলভীবাজারে ‘সনাফ’র হরতালের ডাক : প্রতিহত করবে আ.লীগ  » «  

র‍্যাব-৭ এর সাবেক অধিনায়ককে ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ



image_51075.rab__3898
প্রান্ত ডেস্ক
র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব)-৭ এর সাবেক অধিনায়ক হাসিনুর রহমানকে তুলে নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার পরিবার। এই ঘটনায় হাসিনুর রহমানের স্ত্রী বুধবার রাত ১টায় পল্লবী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন। অভিযোগে তিনি বলেন, এক বন্ধুর সাথে দেখা করতে যাচ্ছিলেন হাসিনুর। রাত ১০টার দিকে পল্লবীর ডিওএইচএসের বাসার সামনে থেকে ডিবি পরিচয় দিয়ে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পল্লবী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা ওই অভিযোগের তদন্ত করছি। অভিযোগ পাওয়ার পরই আমরা কাজ শুরু করেছি। অভিযোগের সত্যতা পেলে লিখিত অভিযোগটি জিডি হিসেবে নেয়া হবে।
থানা সূত্রে জানা গেছে, অভিযোগ পাওয়ার পরপরই পল্লবী থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। যেখান থেকে হাসিনুরকে তুলে নেওয়া হয়েছে সেখান থেকে তার ব্যক্তিগত পিস্তলটি কুড়িয়ে পেয়েছে পুলিশ।
এদিকে গোয়েন্দা পুলিশ হাসিনুর রহমানকে আটকের কথা অস্বীকার করেছে।
ডিবির (পশ্চিম) উপকমিশনার মোখলেসুর রহমান বলেন, এমন কোনো তথ্য আমাদের জানা নেই। তাছাড়া আমরা এই নামে কাউকে আটক করিনি।
জানা গেছে, হাসিনুর রহমানের স্ত্রীর বোন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। সেসময় তার ওই শ্যালিকা হিযবুত তাহরীরের নারী ইউনিটের একজন শীর্ষস্থানীয় নেত্রী ছিলেন।
২০০৯ সালের অক্টোবরে হিযবুত তাহরীর নিষিদ্ধ ঘোষণার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ’র শিক্ষক ও হিযবুত তাহরীরের উপদেষ্টা গোলাম মহিউদ্দিন গ্রেফতার হন। তার জবানবন্দী থেকেই হাসিনুর রহমানের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পাওয়া যায়। তখন হাসিনুর রহমান র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক ছিলেন।
র‌্যাবের হাতে হিযবুত তাহরীরের বেশ কয়েকজন সদস্য আটক হওয়ার পর র‌্যাবও নিশ্চিত হয় হাসিনুর রহমানের সাথে হিযবুত তাহরীরের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।
২০১১ সালের প্রথম দিকে তাকে র‌্যাব সদর দফতরের গোয়েন্দা শাখায় ডেকে পাঠানো হয়। সেসময় গোয়েন্দা শাখার প্রধান ছিলেন লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিয়াউল আহসান। তিনি সাংবাদিকদের কাছে হাসিনুর রহমানের হিযবুত তাহরীর সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত করেন। এরপরেই তাকে র‌্যাব-৭ থেকে অব্যাহতি দিয়ে নিজ বাহিনীতে ফেরত পাঠানো হয়। পরে তাকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়।

Developed by: