সর্বশেষ সংবাদ
ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রদলের কমিটি : ঘোষণা উপজেলার, বাতিল জেলার  » «   ক্রীড়া সংগঠক আব্দুল কাদিরের মায়ের ইন্তেকাল  » «   রণবীর-দীপিকা বিয়ে নভেম্বরে?  » «   যাদুকর ম্যারাডোনার পায়ের অবস্থা করুণ  » «   একটু আগেবাগেই শীতের আগমণ  » «   চট্টগ্রামে আইয়ুব বাচ্চুর জানাযা বাদ আছর  » «   রাবণ পোড়ানো দর্শনকারী ভিড়ের উপর দিয়ে ছুটে গেলো ট্রেন : নিহত ৬০  » «   গোলাপঞ্জে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন উদ্বোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী  » «   বিসর্জনের দিন সিলেটে আসনে ‘দেবী’  » «   বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে মেয়র আরিফ  » «   সিলেটে স্বয়ংক্রিয় কৃষি-আবহাওয়া স্টেশন স্থাপিত  » «   শীতে ত্বক সজীব রাখতে শাক-সবজি খান  » «   সিলেট ওসমানী বিমানবন্দর সংস্কার হচ্ছে প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে  » «   কোম্পানীগঞ্জে টাস্কফোর্সের অভিযানে পেলোডার মেশিন জব্দ  » «   ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনে সরকারকে নোটিশ  » «  

সিসিক নির্বাচন : থাকছে কঠোর নিরাপত্তা



122122
প্রান্ত রিপোর্ট
সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে নিরাপত্তা ব্যবস্থার ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।  নিরাপত্তা নিশ্চিতে থাকছেন র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা। নির্বাচনী সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে নগরীতে র‌্যাবের ২৭টি এবং ১৪ প্লাটুন বিজিবি কাজ করবে। থাকছেন জুডিসিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরাও।
সিলেট আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সিলেট নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৩০ জন সদস্য নিয়ে একটি করে মোবাইল ফোর্স থাকবে। নগরীর প্রতি তিনটি ওয়ার্ড মিলিয়ে থাকবে একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স; এর সদস্য থাকবে ১০ জন। নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডে র‌্যাবের ২৭টি টিম দায়িত্ব পালন করবে।
ইসি সূত্রে জানা গেছে, সিসিক নির্বাচনে ২৭টি ওয়ার্ডে ১৩৪টি ভোটকেন্দ্রে ৯২৬টি ভোটকক্ষ রয়েছে। এসব ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ‘সাধারণ’ তালিকায় থাকা কেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ২২ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। অন্যদিকে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ তালিকায় থাকা কেন্দ্রে থাকবেন ২৪ জন সদস্য। মূলত ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোকেই গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে ধরা হয়। তবে ইসি এখনও সিসিকের গুরুত্বপূর্ণ বা ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র কতোটি, তা জানায়নি।
জানা গেছে, সাধারণ কেন্দ্রগুলোর প্রতিটিতে পুলিশের একজন এসআই, একজন এএসআই ও পাঁচজন কনস্টেবলসহ সাতজন সদস্য, একজন ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্য, একজন পিসি (প্লাটুন কমান্ডার) আনসার সদস্য, একজন এপিসি আনসার সদস্য, ১২ জন লাঠিসহ আনসার সদস্য থাকবেন।
অন্যদিকে, ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোর প্রতিটিতে পুলিশের একজন এসআই, একজন এএসআই ও পাঁচজন কনস্টেবলসহ সাতজন সদস্য, তিনজন ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্য, একজন পিসি (প্লাটুন কমান্ডার) আনসার সদস্য, একজন এপিসি আনসার সদস্য, ১২ জন লাঠিসহ আনসার সদস্য থাকবেন।
ইসি সূত্রে জানা যায়, নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডে ২৭টি মোবাইল ফোর্স থাকবে। পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যের সমন্বয়ে এর প্রতিটিতে সদস্য থাকবে ৩০ জন। এছাড়া প্রতি তিনটি ওয়ার্ডে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১০ জন সদস্য নিয়ে থাকবে স্ট্রাইকিং ফোর্স। নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডে স্ট্রাইকিং ফোর্সের সংখ্যা থাকবে ৯টি। কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে সাথে সাথে এই স্ট্রাইকিং ফোর্স অ্যাকশনে যাবে। এর বাইরে নগরীর প্রতি দুই ওয়ার্ড মিলিয়ে এক প্লাটুন বিজিবি মাঠে থাকবে। ভোটকেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে এবং ভোটাররা যাতে নির্বিঘেœ ভোটকেন্দ্রে যেতে পারেন, তা দেখবে বিজিবি। এছাড়া নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে টহল দেবে র‌্যাবের একটি করে টিম। নির্বাচন নির্বিঘ্ন করতে এবং সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে সিলেট সিটি নির্বাচনে নয়জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং নয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট চারদিন দায়িত্ব পালন করবেন। ভোট গ্রহণের আগের দিন (২৯ জুলাই), ভোটের দিন এবং পরবর্তী দুই দিন এরা মাঠে থাকবেন।
এদিকে, ভোট সুষ্ঠু করতে আগামী শুক্রবার (২৭ জুলাই) রাত ১২টা থেকে বহিরাগতদের সিটি এলাকা ছাড়তে নির্দেশ দিয়েছে ইসি। এছাড়া ভোটের তিন দিন আগে থেকে ভোটের পরবর্তী তিন দিন পর্যন্ত লাইসেন্সধারী অস্ত্র বহনও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
সিলেট আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ের তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা প্রলয় কুমার সাহা গণমাধ্যমকে জানান, ‘একটি সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অবাধ নির্বাচন করতে চায় নির্বাচন কমিশন। এজন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থাই গ্রহণ করা হচ্ছে। নিরাপত্তা যাতে বজায় থাকে, সে জন্য র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি, আনসার মিলে দায়িত্ব পালন করবে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে মাঠে থাকবেন ম্যাজিস্ট্রেটগণও।’

Developed by: