সর্বশেষ সংবাদ
ইকুয়েডরে সড়ক দুর্ঘটনায় ২৪ জন নিহত  » «   ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন হ্যাক করা অত্যন্ত সহজ!  » «   সারা’র রুপে মুগ্ধ সবাই  » «   আবারও সিলেটে অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধু কাপ  » «   সিলেটে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি  » «   প্রতিদ্বন্দ্বি যখন যমজ বোন  » «   বিএনপি নির্বাচন বানচালের চক্রান্ত করছে : কাদের  » «   পঁচাত্তরে যেমন ছিল বাংলাদেশ  » «   চঞ্চল চৌধুরীর প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছেন জয়া!  » «   ওসমানী বিমানবন্দরে নারীর জুতা ও পেটের ভেতর থেকে স্বর্ণের বার উদ্ধার  » «   প্রামাণ্যচিত্র ‘বঙ্গবন্ধু বাংলার ধ্রুবতারা’  » «   ভারতের সাবেক স্পিকার সোমনাথ আর নেই  » «   শহিদুলের চিকিৎসার আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন খারিজ  » «   অদ্ভূত মিল!  » «   ‌’ঈদের পর পেঁয়াজের দাম কমবে’  » «  

জাফর ইকবাল ‘শঙ্কামুক্ত’



28755297_197328874358261_1129816138_o
প্রান্ত ডেস্ক
দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে আহত খ্যাতিমান লেখক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক জাফর ইকবালকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়েছে। তার চিকিৎসায় পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। জাফর ইকবালের অবস্থা শক্তামুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। তার স্বাস্থ্যের ব্যাপারে বেলা ১১টায় সিএমএইচে আনুষ্ঠানিকভাবে ব্রিফ করা হয়। শনিবার রাত ১১টার দিকে জাফর ইকবালকে সিলেট থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় এনে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়।
বিকালে ছুরিকাঘাতের পরপর তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আনা হয়।
শনিবার বিকালে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে ক্যাম্পাসে ছুরিকাঘাত করে এক যুবক। তার মাথার পেছন দিকে ধারালো অস্ত্রের আঘাত করা হয়। এতে তার শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে।
অভিযুক্ত যুবককে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে শিক্ষার্থীরা। সেই যুবকও এখন চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।
এদিকে র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে হামলাকারী যুবক ফয়জুর রহমান ওরফে ফয়জুল জানিয়েছেন, জাফর ইকবাল ইসলামের শত্রু, তাই তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলা চালানো হয়। শনিবার রাত ১টায় সিলেট রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জানান র‌্যাব-৯ এর অধিনায়ক আলী হায়দার আজাদ আহমদ এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, ফয়জুল তার নিজের নাম ও পরিচয় নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য দিচ্ছেন। তার নাম কখনো ফয়জুল আবার কখনো শহীদুল বলছেন। তিনি সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থী বলে জানালেও মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ তা অস্বীকার করেছে।
হামলার তার সঙ্গে কেউ ছিল না জানালেও র‌্যাবের ধারণা তার সঙ্গে আরও কেউ থাকতে পারে। তা তদন্তের মাধ্যমে বেরিয়ে আসবে বলে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা আলী হায়দার। আটকের পর ফয়জুরকে গণপিটুনি দেয়ায় তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। তাকে রাগীব রাবেয়া মেডিকেল থেকে সিলেট জালালাবাদ সম্মিলিত সামরিক হাসপতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

Developed by: