সর্বশেষ সংবাদ
ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রদলের কমিটি : ঘোষণা উপজেলার, বাতিল জেলার  » «   ক্রীড়া সংগঠক আব্দুল কাদিরের মায়ের ইন্তেকাল  » «   রণবীর-দীপিকা বিয়ে নভেম্বরে?  » «   যাদুকর ম্যারাডোনার পায়ের অবস্থা করুণ  » «   একটু আগেবাগেই শীতের আগমণ  » «   চট্টগ্রামে আইয়ুব বাচ্চুর জানাযা বাদ আছর  » «   রাবণ পোড়ানো দর্শনকারী ভিড়ের উপর দিয়ে ছুটে গেলো ট্রেন : নিহত ৬০  » «   গোলাপঞ্জে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন উদ্বোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী  » «   বিসর্জনের দিন সিলেটে আসনে ‘দেবী’  » «   বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে মেয়র আরিফ  » «   সিলেটে স্বয়ংক্রিয় কৃষি-আবহাওয়া স্টেশন স্থাপিত  » «   শীতে ত্বক সজীব রাখতে শাক-সবজি খান  » «   সিলেট ওসমানী বিমানবন্দর সংস্কার হচ্ছে প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে  » «   কোম্পানীগঞ্জে টাস্কফোর্সের অভিযানে পেলোডার মেশিন জব্দ  » «   ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনে সরকারকে নোটিশ  » «  

খাদ্যনিরাপত্তা ও স্বনির্ভরতাকে স্থায়িত্ব দেবে কৃষি সমবায়



কৃষি এখনও যে বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রাণ, তা প্রমাণের জন্যে তেমন তথ্য-উপাত্তের প্রয়োজন নেই। দেশের সিংহভাগ মানুষ এখনও কৃষির উপর কোন না কোনভাবে নির্ভরশীল। কর্মসংস্থান এবং খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিতকরণসহ নানাক্ষেত্রে কৃষিই পালন করছে নিয়ামকের ভূমিকা। কিন্তু পরিবেশদূষণসহ বিভিন্ন কারণে আজ কৃষি হুমকিতে পড়েছে। কৃষি হুমকিতে পড়া মানে আমাদের খাদ্যনিরাপত্তা এবং কর্মসংস্থানও হুমকিতে পড়া।
কৃষির উৎপাদন চাহিদা অনুযায়ী হচ্ছে না বলেই বাজারে এখন হু হু করে চালের দাম বেড়ে চলেছে। আর চালের এই লাগামহীন দাম বৃদ্ধি বলে দিচ্ছে, এখনই পরিবেশদূষণ, বৈরী আবহাওয়া, উন্নত দেশগুলোর আগ্রাসী নীতি, বিশ্বায়নের প্রভাবসহ নানা কারণকে আমলে নিয়ে কৃষির নিরাপত্তা ও উন্নয়নে মনোযোগী না হলে আগামিতে দেশবাসীর খাদ্যনিরাপত্তা চরম হুমকিতে পড়বে। এ অবস্থায় আমাদের প্রতিকার ব্যবস্থা সন্ধান করা আবশ্যক। জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাতসহ নানা কুপ্রভাব বিবেচনায় রেখে খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। এক্ষেত্রে উদ্দেশ্য সাধনে কৃষিসমবায় ব্যবস্থাটি বিস্ময়কর ভূমিকা রাখতে পারে।
সমবায় হলো পরস্পরের সহযোগিতায় পরস্পরের অগ্রগতির পথে প্রতিবন্ধকতা দূর করার একটা উপায়। সাম্য, ঐক্য, সততার সমন্বয়ে সৃষ্ট একটা জোটই হলো সমবায়। একক প্রচেষ্ঠা যেখানে ব্যর্থ সেখানেই প্রয়োজন দলগত প্রচেষ্ঠা। সমন্বিত প্রচেষ্ঠায়ই যে কোনো ক্ষেত্রে আনতে পারে আশাতীত সাফল্য। একটা চিন্তা একজনে না করে বহুজনের মধ্যে যদি সেটা বিস্তার ঘটানো যায়, তবে এর কাঠামো থেকে চূড়ান্ত অবস্থাবধি আমূল পরিবর্তন সম্ভব।
সে জন্যে বলা হয়, চূড়ান্ত অবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনয়নে আশাতীত সাফল্য লাভের লক্ষ্যে সমন্বিত এক প্রচেষ্ঠার নামই সমবায়। সমবায় সংগঠন একটি আইনগত স্বতন্ত্র ও কৃত্রিম সত্তা। সমবায় সাংবিধানিক মালিকানার দ্বিতীয় সেক্টর। বাংলাদেশের বিভিন্ন কৃষি সমবায় ইতোমধ্যে প্রমাণ দিয়েছে যে, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ বৃদ্ধি ও জ্যামিতিক হারে উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি হলেও ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে খাদ্য উৎপাদনে কাক্সিক্ষত সাফল্য পাওয়া কোনো কঠিন ব্যাপার নয়।
খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহ নিশ্চিত করা, কৃষিঝুঁকি মোকাবিলা, সমন্বিত চাষাবাদ, খাদ্যশস্য সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ, কৃষিপ্রযুক্তির ব্যবহার এবং বিপণনের ক্ষেত্রে সমবায়ের সাফল্য এখন পরীক্ষিত সত্য। সরকার যদি সমবায়ভিত্তিক উৎপাদনকে নানা ধরনের পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে উৎসাহ যোগায় তাহলে খাদ্য উৎপাদন বহু গুণ বাড়ানো সম্ভব। ‘কৃষি সমবায় আন্দোলন’ দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিতে প্রয়োজনীয় সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ নিতে পারলে খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করা শুধু সম্ভবই হবে না, দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রফতানি করা যাবে। এতে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করা সম্ভব হবে। আসলে বাংলাদেশের অগ্রগতিকে স্থায়িত্ব দিতে হলে এভাবে পরিকল্পিত পদক্ষেপটি আমাদের নিতে হবে।

Developed by: